Page Nav

HIDE

Grid Style

GRID_STYLE

Post/Page

Weather Location

Popular Posts

Breaking News:

latest

গভীর সমূদ্রে মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা উঠলেও সোমবার থেকে খুলছে না দিঘা মোহনা মাছের বাজার !

চন্দন বারিক, দিঘাট্রিপ.কম :একটানা লকডাউনের জেরে গভীর সমূদ্রে মাছ শিকার ঘিরে তৈরি হয়েছিল ব্যাপক জটিলতা। অবশেষে কেন্দ্রের নির্দেশের পর স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে স্বাভাবিক হওয়ার তোড়জোড় চলছিল গুরুত্বপূর্ণদিঘা মোহনার মাছের বাজার। ট্রল…


চন্দন বারিক, দিঘাট্রিপ.কম : একটানা লকডাউনের জেরে গভীর সমূদ্রে মাছ শিকার ঘিরে তৈরি হয়েছিল ব্যাপক জটিলতা। অবশেষে কেন্দ্রের নির্দেশের পর স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে স্বাভাবিক হওয়ার তোড়জোড় চলছিল গুরুত্বপূর্ণ  দিঘা মোহনার মাছের বাজার। ট্রলারদের সমূদ্রে যাওয়ার জন্যও শুরু হয়ে যায় প্রস্তুতি।

 

এরই মাঝে দিঘা মোহনা এলাকা ও আশেপাশের গ্রামবাসীরা করোনা আতংকের জেরে মাছ বাজার এখনই শুরু করার ঘোষণার বিরোধিতা শুরু করে। তাঁদের দাবী, মাছের বাজার খুললেই এই রাজ্যের পাশাপাশি ভিন রাজ্যের বহু মানুষের আনাগোনা বাড়বে এলাকায়। এর জেরে ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনার প্রকোপ।

 

তাঁদের সেই আশংকা যে অমূলক নয় তার প্রমাণ মিলেছে দেশ জুড়ে মাত্রাছাড়া বাড়তে থাকা করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে দিঘা মোহনার মাছের বাজার কিভাবে সচল করা যাবে তারই পথ খুঁজতে রবিবার জরুরী বৈঠকে বসেন মৎস্যজীবি সংগঠন থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

 

রবিবার মোহনায় অবস্থিত দিঘা ফিসারম্যান এন্ড ফিস ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশানের ভবনে জরুরী বৈঠকে এই জট কাটাতে দীর্ঘ আলোচনা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য সহ এলাকার নেতা নেত্রীবৃন্দরাও।

 

মৎস্যজীবি অ্যাসোসিয়েশানের পক্ষে ছিলেন সভাপতি প্রণব কর, সম্পাদক শ্যামসুন্দর দাস। এছাড়াও ছিলেন রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি, জনস্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ সুশান্ত পাত্র প্রমূখরা। এই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামীকাল সোমবার থেকে দিঘা মোহনা মাছের বাজার খোলা হচ্ছে না। পরিবর্তে ১৫ দিন বাদে ১লা জুলাই থেকে মাছের বাজার খুলে দেওয়া হবে।

 

তবে ট্রলার মালিক ও মৎস্যজীবিদের জন্য খুশির খবর হল, আগামী কাল থেকে গভীর সমূদ্রে মৎস্য শিকারে কোনও বাধা থাকছে না। সমূদ্র থেকে ফিরে অন্য কোনও বাজারে গিয়ে মাছ বিক্রী করতে পারবেন ট্রলার মালিকেরা। তবে দিঘা মোহনা বাজারে মাছের নিলামের জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও কয়েকটা দিন।


No comments